এসইও কিঃ খায় না মাথায় দেয়?

এসইও কিঃ খায় না মাথায় দেয়?

এসইও এর পূর্ণরূপ দ্বারায় সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন। সহজ ভাষায় বলতে গেলে এসইও একটি প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে সার্চ ইঞ্জিনে একটি প্রাসঙ্গিক ওয়েব সার্চের পরিপ্রেক্ষিতে আপনার ওয়েবসাইটের মানুষের সামনে বেশি আসার সুযোগটা তৈরি হয়। আর আপনার ওয়েবসাইটে যত বেশি দর্শক বা মানুষ প্রবেশ করবে, ওয়েবসাইট মালিক হিসেবে আপনার তত বেশি লাভ, নিঃসন্দেহে! আর সামাজিক মাধ্যমে শেয়ার করে, বা একে সবাইকে বলে সেই পরিমাণ দর্শক আনা খুবই কষ্টকর হয়ে যায়, যত সহজে আপনি সার্চ ইঞ্জিন থেকে দর্শক আনতে পারেন। কেননা সবাইকোনো তথ্যের জন্য সার্চ ইঞ্জিনেই সার্চ করবে, যেমনটা আপনিও করেন।

সুতরাং সার্চের পরিপ্রেক্ষিতে আপনার ওয়েবসাইট থেকে সেই প্রাসঙ্গিক ফলাফল সবার সামনে নিয়ে আসার যে প্রক্রিয়া তাকে বলা হচ্ছে এসইও তথা সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন।

একজন ওয়েবসাইট মালিকের ক্ষেত্রে এসইও করার পেছনে প্রধান তিনটি উদ্দেশ্য থাকে। এই তিনটি উদ্দেশ্য হচ্ছে, কোয়ালিটি অফ ট্রাফিক, কোয়ান্টিটি অফ ট্রাফিক এবং অর্গানিক রেজাল্ট। এখানে ট্রাফিক বলতে বোঝানো হচ্ছে, সেকল মানুষ আপনার ওয়েবসাইটে প্রবেশ করছে।

একজন ওয়েবসাইট মালিকের ক্ষেত্রে এসইও করার পেছনে প্রধান তিনটি উদ্দেশ্য থাকে। এই তিনটি উদ্দেশ্য হচ্ছে, কোয়ালিটি অফ ট্রাফিক, কোয়ান্টিটি অফ ট্রাফিক এবং অর্গানিক রেজাল্ট। এখানে ট্রাফিক বলতে বোঝানো হচ্ছে, সেকল মানুষ আপনার ওয়েবসাইটে প্রবেশ করছে।

কোয়ালিটি অফ ট্রাফিক

এখন আপনার ওয়েবসাইটে ঠিকভাবে এসইও করা নেই, স্বাভাবিক তবুও আপনার ওয়েবসাইটের বেশ কিছু কিছু তথ্য গুগল কিংবা বিং এর মত সার্চ ইঞ্জিনে থাকতে পারে। সেক্ষেত্রে দেখা যাচ্ছে কোন মানুষ কোন একটি স্মার্টফোন সম্পর্কে জানতে চেয়ে গুগলে সার্চ করে আপনার ওয়েবসাইটে ঢুকে, তার কাঙ্খিত ফলাফলটি না পেয়ে অন্য একটি স্মার্টফোনের তথ্য পেলো, তবে সেটি আপনার জন্য কোয়ালিটি ট্রাফিক হলনা। যার কারন আপনার ওয়েবসাইটে ঠিকভাবে এসইও করা না, অথবা আপনি এসইও করার জন্য কোনদিন মাথাই ঘামাননি।

তবে একজন মানুষ বিটিসিএল এর ইন্টারনেট প্যাকেজ সম্পর্কে জানার জন্য গুগলের মত সার্চ ইঞ্জিনে ‘বিটিসিএল ইন্টারনেট প্যাকেজ’ লিখে সার্চ করল, আর প্রথম পাতায় আপনার ওয়েবসাইটের একটি লিঙ্ক পেয়ে সেটিতে ক্লিক করল; এবং সে তার কাঙ্ক্ষিত ফলাফলটি পেয়ে গেলো, সেক্ষেত্রে তাকে আপনি বলবেন একজন কোয়ালিটি ট্রাফিক। আর এটি সম্ভব হয়েছে ঠিকভাবে আপনার ওয়েবসাইটে এসইও করার ফলে। আর কারনে কোয়ালিটি অফ ট্রাফিকের জন্য এসইও খুবই জরুরি। কোয়ালিটি অফ ট্রাফিকএর জন্য এসইও এর কোন বিকল্প নেই।

কোয়ান্টিটি অফ ট্রাফিক

কোয়ান্টিটি অফ ট্রাফিকের মানে দ্বারায় আপনার ওয়েবসাইটে কতসংখ্যক দর্শক প্রবেশ করছে। শুদ্ধ এসইও চর্চার মাধ্যমে আপনি জেনে যাবেন মানুষ আসলে কোনরকম তথ্য বেশি দেখতে চায়; তখন সেই হিসেবে আপনি যখন সেই তথ্যভিত্তিক কনটেন্টগুলো বেশি করে আপনার ওয়েবসাইটে প্রকাশ করবেন, তখন আপনার ওয়েবসাইটে প্রচুর সংখ্যক দর্শক তথা ট্রাফিক প্রবেশ করবে। আর এই জন্য কোয়ান্টিটি অফ ট্রাফিক এর জন্য এসইও এর বিকল্প নেই।

অর্গানিক রেজাল্ট

এই বিষয়টি বোঝার আগে আপনাকে জানতে হবে এসইআরপি সম্পর্কে। এসইআরপি এর পূর্ণরূপ দ্বারায় ‘সার্চ ইঞ্জিন রেজাল্ট পেজ’ সার্চ ইঞ্জিন তাদের ব্যবহারকারীর প্রতিটি সার্চ রেজাল্টের বিপরীতে তাদের সামনে অনেকগুলো এসইআরপি প্রদর্শন করায়। আর আপনি কোনোকিছু সার্চ করলে গুগল আপনাকে প্রথমে যে ওয়েবপেজটি দেখায়, সেটি হচ্ছে প্রথম এসইআরপি পেজ। তারপর নিচের দিকে আপনি দেখবেন অনেকগুলো নাম্বার সহ আরো অনেকগুলো পেজ, সেগুলো হচ্ছে পরবর্তী এসইআরপি। আর অবশ্যই প্রথম এসইআরপি পেজে যে তথ্যগুলো আসে, বেশিরভাগ মানুষ সেখান থেকেই তাদের পছন্দের তথ্য বেছে নেয়। আর তাই ওয়েবসাইট মালিকদের তাদের ওয়েবসাইটে বেশি সংখ্যক দর্শক তথা ট্রাফিক আনার জন্য তাদের ওয়েবসাইটের পেজগুলো যেন প্রথম এসইআরপি তে আসে সেটি অবশ্যই মাথায় রাখতে হবে। আর সে জন্যই এসইও। আর শুদ্ধ এসইও চর্চার অন্যতম উদ্দেশ্য ওয়েবসাইটের পেজগুলো সেই পেজের তথ্যের হিসেবে মানুষ সার্চ ইঞ্জিনে সার্চ করলে সেই পেজ যেন সার্চ রেজাল্টের প্রথম পেজে আসে সেটি নিশ্চিত করা। এই জন্য এসইআরপি তে বেশি র‍্যাঙ্কিং করার জন্য এসইও এর বিকল্প নেই।

প্রতিটি এসইআরপি তথা ‘সার্চ ইঞ্জিন রেজাল্ট পেজ’ এর উপরের দিকে অনেকগুলো সার্চ রেজাল্ট থাকে যে রেজাল্টগুলো মূলত বিজ্ঞাপন, ডিজিটাল মার্কেটাররা সার্চ ইঞ্জিনকে টাকা দেয়ার মাধ্যমে সেই রেজাল্টগুলো প্রতিটি এসইআরপি তথা ‘সার্চ ইঞ্জিন রেজাল্ট পেজ’ এর উপরে প্রদর্শন করায়, যেন মানুষ তাতে বেশি বেশি ঢোকে। তবে সবার ক্ষেত্রে তো আর টাকা দিয়ে তাদের ওয়েবসাইটের মার্কেটিং করা সম্ভব নয়! তো এভাবে এসইও এর মাধ্যমে পেইড মার্কেটিং এর বিপরীতে এসইআরপিতে নিজের ওয়েবসাইটের তথ্য র‍্যাঙ্ক করে অর্গানিক ট্রাফিক আনা যায়। আর বিজ্ঞাপন এর মাধ্যমে যে ট্রাফিকগুলো আসে, তাদেরকে বলা হয় পেইড ট্রাফিক। ওয়েবসাইট জগতে সফলতার জন্য অর্গানিক ট্রাফিক এর বিকল্প নেই, সুতরাং ওয়েবসাইট থেকে সফলতার জন্য শুদ্ধ এসইও চর্চা বাধ্যতামূলক।

এসইও সাধারণত দুইভাবে করা হয়, একটি হচ্ছে অন পেজ এসইও আরেকটি হচ্ছে অফ পেজ এসইও।

এসইও সাধারণত দুইভাবে করা হয়, একটি হচ্ছে অন পেজ এসইও আরেকটি হচ্ছে অফ পেজ এসইও।

অনপেজ এসইও

অনপেজ এসইও হচ্ছে এসইও চর্চার প্রথম ধাপ। যখন আপনি আপনার ওয়েবসাইটের মূল সম্পদ অর্থাৎ একটি কন্টেন্ট তৈরি করছেন, সেই সময় যে কাজগুলো করা হয় তাকে বলা যায় অনপেজ এসইও। আপনি একটি পোস্ট লেখার সময় সেই পোস্টের ভেতর পর্যাপ্ত পরিমানে আপনি যে বিষয়টি নিয়ে আর্টিকেল লিখছেন, অর্থাৎ আপনার কিওয়ার্ড; তা বারে বারে উল্লেখ্য করলেন। আপনার পোস্ট সেই কিওয়ার্ড এর আঙ্গিকে পর্যায় ক্রমে সুন্দর করে সাজালেন। আপনার ওয়েব পোস্টকে দর্শকের কাছে আরো সুন্দর করে উপস্থাপন করার জন্য অনেকগুলো ছবি যুক্ত করলেন, আপনার পোস্টের ভেতর উল্লেখিত কোন বিষয় সম্পর্কে যদি আপনার ওয়েবসাইতে আগেও কোন পোস্ট করা হয়ে থাকে, সেটি সুন্দর একটি লিঙ্কের মাধ্যমে যুক্ত করে দিলেন; এসকল বিষয় পরবে অন পেজ এসইও এর মধ্যে!

অফপেজ এসইও

অনপেজ এসইও কে যদি আপনি বলেন ২০০ মিটার স্প্রিন্ট দৌড়, তবে অফপেজ এসইও কে বলতে হবে ১০ কিলোমিটার ম্যারাথন দৌড়। অর্থাৎ অফপেজ এসইও এর কাজের ক্ষেত্রে আপনাকে অত তাড়াহুড়া করার দরকার নেই! যা করবে আস্তে ধীরে সুন্দর ভাবে। অফপেইজ এসইও এর কাজ এমন যাকে করতে হবে আপনার ওয়েবসাইটের বাহির থেকে। যেমন আপনি আপনার ওয়েবসাইটের লিঙ্ক বিভিন্ন প্রাসঙ্গিক ইউটিউব ভিডিওর ডেসক্রিপশনে দিলেন, আবার বিভিন্ন সামাজিক মাদ্ধম পেজ বা প্রোফাইল খুলে সেখানে লিঙ্ক শেয়ার করলেন। লিঙ্ক বিল্ডাপ করলেন, সাইটের ডিজাইন সুন্দর এবং স্পিড ফাস্ট করলেন, সাইটের প্রতিটি কন্টেন্ট এর সাথে একেকটি কন্টেন্ট খুব ভালোভাবে ম্যাপিং করলেন, অন্যান্য ওয়েবসাইটের সাথে আপনার লিঙ্ক শেয়ার করলেন, সার্চ ইঞ্জিনকে আপনার ওয়েবসাইটের প্রতিটি পেজ ইন্ডেক্স করার জন্য সঠিকভাবে রিকুয়েস্ট করলেন; এসবকিছুই পরবে অফ পেজ এসইও এর মধ্যে।


সঠিক অফ পেজ এবং অন পেজ এসইও পারবে আপনার ওয়েবসাইটকে একটি ভালো র‍্যাঙ্কিং এনে দিতে। আর ওয়েবসাইট এর ভালো র‍্যাঙ্কিং মানে বেশি ট্রাফিক বা দর্শক। আর বেশি ট্রাফিক ওয়েবসাইটের সফলতা, ওয়েবসাইটের সফলতা মানে আপনার সফলতা! এই আর্টিকেল তথা নিবন্ধটি এসইও ব্যাপারটা কি সেটা নিয়ে কেবল সূচনা বা আপনাকে ধারনা দেয়া মাত্র। পরবর্তীতে আমরা প্রতিটি বিষয় নিয়ে আরো বিস্তারিত জানব।